ইসলাম কী?

ইসলাম কী?

ইসলাম কী? ইসলাম একটি আরবী শব্দ। শব্দটির অভিধানিক অর্থ অনুগত হওয়া, আত্মসমর্পন করা, আনুগত্য করা, শান্তির পথে চলা ও মুসলমান হওয়া। ইসলামের পারিভাষিক সংজ্ঞা হলো- আল্লাহর অনুগত হওয়া, আনুগত্য করা ও তার নিকট পূর্ণ আত্মসমর্পন করা। বিনা দ্বিধায় আল্লাহর আদেশ-নিষেধ মেনে চলা এবং তার দেওয়া বিধান অনুসারে জীবন যাপন করা নামই ইসলাম। যিনি ইসলামের বিধান মেনে জীবন পরিচালনা করবেন, তিনি মুসলিম বা মুসলমান। ইসলাম ধর্ম আল্লাহপাকের মনোনীত একমাত্র দীন। একটি পূর্ণাঙ্গ ও পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা। জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত এ ব্যবস্থার আলোকে একজন মুসলাম জীবন যাপন করতে সক্ষম। ইসলামে রয়েছে সমাজ, রাষ্ট্র ও অর্থ ব্যবস্থা। এমনকি আরো রয়েছে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক নীতিমালা। মানব চরিত্রের উৎকর্ষ সাধন, ন্যায়নীতি ও সুবিচারর ভিত্তিক শান্তি-শৃঙ্খলাপূর্ণ গতিশীল সুন্দর সামজ গঠন ও সংরক্ষণে ইসলামের কোনো বিকল্প নেই। পবিত্র কুরআনে আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন, ‘ইসলামই আল্লাহর একমাত্র মনোনীত দীন।’ (সূরা : আল ইমরান, আয়াত : ১৯)

অন্য আয়াতে আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন, ‘কেউ ইসলাম ব্যতীত অন্য কোনো দীন গ্রহণ করতে চায়; তা কখনো কবুল করা হবে না।’ (সূরা : আলে ইমরান, আয়াত : ৮৫)। একটি হাদিসে এসেছে, রাসুল (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘ইসলাম হলো- আল্লাহ ব্যতীত কোনো ইলাহ নেই এবং মুহাম্মদ (সা.) আল্লাহর রাসুল- এ কথার সাক্ষ্য দেওয়া, সালাত আদায় করা, জাকাত প্রদান করা, রমজানের রোজা পালন করা এবং বায়তুল্লাহ শরীফে গিয়ে হজ আদায় করা।’ (বুখারী ও মুসলিম)

সকল নবী-রাসূলের ধর্ম ছিলো ইসলাম। হজরত আদম (আ.) থেকে শুরু করে শেষ নবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) পর্যন্ত আগমনকারী সকল নবী-রাসুলগণই মানুষকে ইসলামের দিকেই আহ্বান জানিয়েছেন।  ইসলাম ধর্মের মর্মবাণী হলো- আল্লাহর পরিপূর্ণ আনুগত্য করা। পবিত্র কুরআনে আল্লাহপাক ইরশাদ করেছেন, ‘হে আমার প্রতিপালক! আমাদের উভয়কে মুসলিম তথা তোমার অনুগত বানাও এবং আমাদের বংশধর থেকে এক উম্মাতে মুসলিমা অর্থাৎ তোমার এক অনুগত উম্মাত বানাও।’ (সূরা : বাকারা, আয়াত : ১২৮) মোটকথা, সকল নবী-রাসুলগণের প্রচারিত ধর্মে মৌলিক কোনো পার্থক্য ছিল না। কিন্তু কিছু কিছু নবী-রাসুলকে আলাদা শরীয়ত দান করা হয়েছে। আল্লাহপাক পবিত্র কুরআনে ইরশাদ করেছেন, ‘আামি তোমাদের প্রত্যেকের জন্য শরীয়ত ও স্পষ্টপথ নির্ধারণ করেছি।’ (সূরা : মায়িদা, আয়াত : ৪৮)। পৃথিবীর সর্বপ্রথম মানব হজরত আদম (আ.) থেকে শুরু করে নবী-রাসুলগণের দ্বারা যে ধারা শুরু হয়েছিল তার সমাপ্তি ঘটেছে হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর আগমনের মাধ্যমে। তিনি সর্বশেষ নবী। আল্লাহপাকের পক্ষ থেকে হজরত মুহাম্মদ (সা.) যে আদর্শ ও বিধি-বিধান নিয়ে এসেছেন, তা অকাট্যভাবে প্রমাণিত- মনে-প্রাণে এ বিশ্বাস করা এবং পালন করাই হচ্ছে ইসলামের মৌলিক প্রতিপাদ্য।

ইসলাম কী? ইসলাম একটি পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা, তার প্রমাণ কী?”

আপনি প্রথমে জানতে চেয়েছেন ইসলাম কি, এরপর এর সম্ভাব্য উত্তর “একটি পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা” এর পক্ষে প্রমাণ চেয়েছেন। আপনার এই আচরণের অর্থ দাঁড়ায়, আপনি ইসলাম সম্পর্কে জানতে আগ্রহী কিন্তু কেউই আপনার সেই জ্ঞানপিপাসাকে ঠিকমত মেটাতে পারে নাই। ইনশাআল্লাহ (আল্লাহ যদি চান) আমি আপনার এই পিপাসা নিবারণে নিজের সামর্থ্যের সবটুকু দেয়ার চেষ্টা করব, আপনার অন্তরকে তৃপ্ত করার মালিক আল্লাহ সুবানাহুতায়ালা।

ইসলাম কি?

আসুন দেখি ইসলামের ব্যাপারে ইসলাম নিজে কি বলে-

“হে মুহাম্মাদ (সাঃ) বল, আমার রব নিঃসন্দেহে আমাকে সঠিক নির্ভূল পথ দেখাইয়া দিয়াছেন।সম্পূর্ণ ও সর্বতভাবে নির্ভূল দ্বীন, তাহাতে বক্রতার কোন স্থান নাই। ইহা ইব্রাহীমের অবলম্বিত পথ ও পন্থা, যাহা সে ঐকান্তিক নিষ্ঠা ও একমূখীতার সহিৎ গ্রহণ করেছিল এবং সে মুসলিমদের মধ্যে ছিল। বল, আমার নামায, আমার সর্বপ্রকার ইবাদত অনুষ্ঠান সমুহ, আমার জীবন ও আমার মৃত্যু সবকিছুই সারা জাহানের রব আল্লাহর’ই জন্য।” সূরা আল-আনআম ১৬১-১৬২।

إِنَّ الدِّينَ عِندَ اللّهِ الإِسْلاَمُ وَمَا اخْتَلَفَ الَّذِينَ أُوْتُواْ الْكِتَابَ إِلاَّ مِن بَعْدِ مَا جَاءهُمُ الْعِلْمُ بَغْيًا بَيْنَهُمْ وَمَن يَكْفُرْ بِآيَاتِ اللّهِ فَإِنَّ اللّهِ سَرِيعُ الْحِسَابِ

নিঃসন্দেহে আল্লাহর নিকট গ্রহণযোগ্য দ্বীন একমাত্র ইসলাম। এবং যাদের প্রতি কিতাব দেয়া হয়েছে তাদের নিকট প্রকৃত জ্ঞান আসার পরও ওরা মতবিরোধে লিপ্ত হয়েছে, শুধুমাত্র পরস্পর বিদ্বেষবশতঃ, যারা আল্লাহর নিদর্শনসমূহের প্রতি কুফরী করে তাদের জানা উচিত যে, নিশ্চিতরূপে আল্লাহ হিসাব গ্রহণে অত্যন্ত দ্রুত। [ সুরা ইমরান ৩:১৯ ]

فَإنْ حَآجُّوكَ فَقُلْ أَسْلَمْتُ وَجْهِيَ لِلّهِ وَمَنِ اتَّبَعَنِ وَقُل لِّلَّذِينَ أُوْتُواْ الْكِتَابَ وَالأُمِّيِّينَ أَأَسْلَمْتُمْ فَإِنْ أَسْلَمُواْ فَقَدِ اهْتَدَواْ وَّإِن تَوَلَّوْاْ فَإِنَّمَا عَلَيْكَ الْبَلاَغُ وَاللّهُ بَصِيرٌ بِالْعِبَادِ

যদি তারা তোমার সাথে বিতর্কে অবতীর্ণ হয় তবে বলে দাও, “আমি এবং আমার অনুসরণকারীগণ আল্লাহর প্রতি আত্নসমর্পণ করেছি।” আর আহলে কিতাবদের এবং নিরক্ষরদের বলে দাও যে, তোমরাও কি আত্নসমর্পণ করেছ? তখন যদি তারা আত্নসমর্পণ করে, তবে সরল পথ প্রাপ্ত হলো, আর যদি মুখ ঘুরিয়ে নেয়, তাহলে তোমার দায়িত্ব হলো শুধু পৌছে দেয়া। আর আল্লাহর দৃষ্টিতে রয়েছে সকল বান্দা। [ সুরা ইমরান ৩:২০ ]

ইসলাম একটি পরিপূর্ণ জীবন ব্যবস্থা, তার প্রমাণ –

একঃ ইসলাম-ই পৃথিবীর সর্বপ্রথম জীবন ব্যবস্থা

ইসলাম দাবি করে মানুষের আদি পিতা আদম এবং আদি মাতা হাওয়া। এবং তাদেরকে বেহেস্ত থেকে পৃথিবীতে পাঠানো হয়েছে।

وَإِذْ قَالَ رَبُّكَ لِلْمَلاَئِكَةِ إِنِّي جَاعِلٌ فِي الأَرْضِ خَلِيفَةً قَالُواْ أَتَجْعَلُ فِيهَا مَن يُفْسِدُ فِيهَا وَيَسْفِكُ الدِّمَاء وَنَحْنُ نُسَبِّحُ بِحَمْدِكَ وَنُقَدِّسُ لَكَ قَالَ إِنِّي أَعْلَمُ مَا لاَ تَعْلَمُونَ

আর তোমার পালনকর্তা যখন ফেরেশতাদিগকে বললেনঃ আমি পৃথিবীতে একজন প্রতিনিধি বানাতে যাচ্ছি, তখন ফেরেশতাগণ বলল, তুমি কি পৃথিবীতে এমন কাউকে সৃষ্টি করবে যে দাঙ্গা-হাঙ্ গামার সৃষ্টি করবে এবং রক্তপাত ঘটাবে? অথচ আমরা নিয়ত তোমার গুণকীর্তন করছি এবং তোমার পবিত্র সত্তাকে স্মরণ করছি। তিনি বললেন, নিঃসন্দেহে আমি জানি, যা তোমরা জান না। [ সুরা বাকারা ২:৩০ ]

قُلْنَا اهْبِطُواْ مِنْهَا جَمِيعاً فَإِمَّا يَأْتِيَنَّكُم مِّنِّي هُدًى فَمَن تَبِعَ هُدَايَ فَلاَ خَوْفٌ عَلَيْهِمْ وَلاَ هُمْ يَحْزَنُونَ

আমি হুকুম করলাম, তোমরা সবাই নীচে নেমে যাও। অতঃপর যদি তোমাদের নিকট আমার পক্ষ থেকে কোন হেদায়েত পৌঁছে, তবে যে ব্যক্তি আমার সে হেদায়েত অনুসারে চলবে, তার উপর না কোন ভয় আসবে, না (কোন কারণে) তারা চিন্তাগ্রস্ত ও সন্তপ্ত হবে। [ সুরা বাকারা ২:৩৮ ]

قَالَ فِيهَا تَحْيَوْنَ وَفِيهَا تَمُوتُونَ وَمِنْهَا تُخْرَجُونَ

বললেনঃ তোমরা সেখানেই জীবিত থাকবে, সেখানেই মৃত্যুবরন করবে এবং সেখান থেকেই পুনরুঙ্খিত হবে। [ সুরা আরাফ ৭:২৫ ]

এই প্রথম মানব মানবীর বিশ্বাস অন্যান্য আব্রাহামিক ধর্ম (ইব্রাহিমীয় ধর্ম বা আব্রাহামীয় ধর্ম (ইংরেজি: Abrahamic Religion) বলতে একেশ্বরবাদী ধর্মগুলোকে বোঝানো হয়,

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap