মাইক্রোওয়েভ ওভেন কী? ওভেন সম্পকে খুঁটিনাটি জেনে নিন সহজেই

[ad_1]

মাইক্রোওয়েভ ওভেন কী?? এটি আমাদের কী কী কাজে সহায়তা করে? –প্রভৃতি নানা ধরনের প্রশ্ন আমাদের মনে ঘোরাফেরা করে । মাইক্রোওয়েভ ওভেন সম্পকে একটি স্বচ্ছ ধারণা পেতে আমার আজকের আটিকেলটি পাঠের জন্য সবাইকে অনুরোধ জানাচ্ছি । তো চলুন এ সম্পকে জেনে নেওয়া যাক ।

Microwave oven কী?

মাইক্রোওয়েভ ওভেন একটি ইলেক্ট্রনিক্স যন্ত্র যার সাহায্যে রান্নার মতো অনেক ধরনের কাজ বিদ্যুতের সাহায্যে সহজেই করা যায় । শুধুই যে রান্না করা যায় তা নয় । খাবার গরম করা, চা কফি বানানো প্রভৃতি কাজও মাইক্রো ওয়েভ দিয়ে করা যায় । তো চলুন একটি মাইক্রোওয়েভ দিয়ে কি কি করা যায় তা জেনে নিই ।

একটি মাইক্রো ওয়েভ দিয়ে কি কি করা যায়?

কি কি করা যায় তা জানবার জন্য আগে মাইক্রো ওভেন সম্পকে আরেকটু খুটিনাটি জানব । মাইক্রো ওভেনে খাবার গরম করার জন্য নিচ থেকে তাপ দেওয়া হয় না । সবসময় উপর থেকে তাপ দেওয়া হয় । এই তাপটি মাইক্রো ওভেনে থাকা একটি হিটিং রডের সাহায্যে দেওয়া হয়ে থাকে । তাই খাবার পুড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে । তাই সহজেই যে কোন ধরনের খাবার সহজেই রান্না করা যায় ।

এবার আসি কি কি রান্না করা যায় । ধরুন আপনাকে ৩০ মিনিটের মধ্যে অফিসে বা বিদ্যালয়ে যেতে হবে । গ্যাসের চুলাতে রান্না করতে সময় লাগবে প্রায় ১০মিনিট । অন্যদিকে গোশতও গরম করে খেতে হবে । এরুপ সময় রান্না করা আপনার পক্ষে অনেক কঠিন হয়ে পড়বে । আবার শীতকালে বিছানা থেকে উঠতে কষ্টকর । কিন্তু আপনাকে খুব সকালেই রান্না করতে হবে ।— এরকম অনেক সময় রান্না করা নিজের পক্ষে কঠিন হয়ে পড়ে ।

মাইক্রো ওভেনে নিদিষ্ট খাবার রান্নার সময় সেট করে রেখে দিলে তা নিজের মতো রান্না সম্পূণ হয়ে যায় । ভাত রান্না থেকে শুরু করে কেক বানানো, পিজা বানানো সব ধরনের খাবার রান্না করা যায় ওভেনের সাহায্যে ।

ভাত রান্না করার জন্য আপনার সময় লাগবে সবোচ্চ ১৫মিনিট । যদি ওভেন অধিক পাওয়ারফুল হয় তবে আরও কম সময় লাগতে পারে । যেমন ওভেন প্রোটেক্টেড পাত্রে চাল ধুয়ে নিদিষ্ট পরিমাণ পানি দিয়ে রাখলেন । তারপর ওভেনে সময় সেট করে ওভেনের দরজা বন্ধ করে দিলেন । তারপর সময় নিজে নিজে পেছনে ঘুরতে থাকবে । ১৫ মিনিট শেষ হয়ে গেলে সিগনাল দিবে এবং ওভেন অটোমেটিক বন্ধ হয়ে যাবে । ফলে ভাত ও অন্যান্য খাবার পুড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে না । আর দাঁড়িয়ে থেকে দেখাশোনাও করা লাগে না । এভাবে যে কোন খাবার রান্না করা যায় ।

মাইক্রো ওভেনে খাবার রান্না ব্যতীত কী কী করা যায়??

খাবার রান্না ব্যতীত অনেক কাজ করা যায় মাইক্রো ওভেনের সাহায্যে । অনেক সময় আমরা গোশত ফ্রিজে রেখে দিই । সেই গোশত জমে গেলে ছাড়ানোর জন্য অনেক সময় পানিতে রেখে দিতে হয় । মাইক্রো ওভেনে এই গোশত তাপ দিয়ে সহজেই ছাড়ানো যায় ।

** কোন কোন মাইক্রো ওভেনে একাধিক মেনু যুক্ত করা থাকে । এই মেনু গুলোর মধ্যে একটি থাকে Deforestation । এই মেনুতে ফ্রিজের জমিয়ে রাখা খাবার ছাড়ানোর কাজে ব্যবহার করা যায় ।

তাছাড়া আরও মেনু থাকে । যেমন পিজ্জা, ডাল ইত্যাদি । মেনু সেট করার মাধ্যমে আপনাকে ঐ খাবারের সময় নিধারণ করে দিতে হয় না । যেমন আপনি হয়তো জানেন না পিজ্জা বানাতে মাইক্রো ওভেনে কত সময় লাগে ?? এক্ষেত্রে পিজ্জা ওভেনের ভিতরে দিলে এবং পিজ্জা মেনু সেট করে দিলেই হয়ে যাবে । আপনাকে সময় ও তাপ কোন কিছুই সেট করতে হবে না ।

মাইক্রো ওভেনে খাবার গরম ও রান্না করতে কোন ধরনের পাত্র ব্যবহার করা যাবে??

মাইক্রো ওভেনে একাধিক মোড সিস্টেম থাকে । যেমন Convention মোড, Grill মোড, Microwave মোড ইত্যাদি । একেক মোডের একেক ব্যবহার । যেমন গ্রিল মোড চিকেন পোড়ানোর কাজে ব্যবহৃত হয় । আর একেক মোডে একেক পাত্র ব্যবহার করতে হয় । তা না হলে দূঘটনা ঘটতে পারে । এজন্য ওভেন প্রোটেক্টেড পাত্র ব্যবহার করতে হয় । আর ধাতব পাত্র ব্যবহার করা যায় না । প্লাস্টিক ও কাচের পাত্র ব্যবহার করা যায় । তবে সেগুলো ওভেন প্রোটেক্টেড হতে হয় । এজন্য স্থানীয় মেলামাইন পাত্র বিক্রেতাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন ।

দাম সংক্রান্ত ::

যত দামী ওভেন কিনবেন তত ফাংশান পাবেন । তবে ৩০ লিটার ওভেন কেনা আমার মতে ভালো । দাম পড়ে প্রায় ১৫হাজার টাকা । যদি শুধু খাবার গরম করতে চান তাহলে ৭ থেকে ৮ হাজার টাকার মধ্যে নিতে পারেন । ৩০ লিটার ওভেনে খাবার গরম করার পাশাপাশি কেক বানানো, চিকেন ফ্রাই, কাবাব বানানো ইত্যাদি করা যায় ।

তো আমার পক্ষ থেকে এতটুকুই ছিল । আটিকেলটি আপনার কেমন লাগল তা অবশ্যয় কমেন্ট করবেন । আশা করছি ওভেন সম্পকে যথেষ্ঠ ধারণা পেয়েছেন ।



[ad_2]

Source link

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap