স্বপ্নে নামাজ পড়তে দেখলে কি হয় । shopne namaz porte dekhle ki hoy . স্বপ্নে নামাজ পড়া দেখলে কি ।

স্বপ্নে নামাজ পড়তে দেখলে কি হয়. যদি কেউ শুয়ে নামাজ পড়তে দেখে তাহলে তার মনে করতে হবে তার মৃত্যু খুব শীঘ্রই এসে গেছে। এই ক্ষেত্রে মহান আল্লাহ তাআলাই ভালো জানেন। যদি কেউ নামাজ বসে পড়তে দেখে তাহলে সে দ্রুতই রোগাক্রান্ত হবে। যদি পশ্চিম দিকে কেউ নামাজ পড়তে দেখে তাহলে ধর্মের দিক দিয়ে সে উদাসীন হবে। যদি নামাজ কোন বড় জামাতের সাথে পড়তে দেখে তাহলে তার নিকট আল্লাহর রহমত অবারিত পড়তে থাকে। আর যদি নিজেই ইমামতি করতে দেখে তাহলে জাতীয় নেতৃত্ব লাভ করার সম্ভাবনা হয়েছে। ইনশাআল্লাহ।

#আল_নুর_নবী_মিডিয়া
#স্বপ্নে_কি_দেখলে_কি_হয়
#মিজানুর_রহমান_আজহারী_নতুন_ওয়াজ

স্বপ্নে নামাজ ও বিয়ে করতে দেখলে কি হয়? সকল মুসলিমের জানা উচিত! স্বপ্নে যদি আপনি বিয়ে করতে দেখেন অথবা নামাজ পড়তে দেখেন তাহলে ইসলামের বিশেষজ্ঞদের মতে এই স্বপ্নগুলো কোন আলামত বহন করে আপনার জীবনের জন্য তা আমাদের জানা অত্যন্ত জরুরী।

স্বপ্ন ঘুমের ঘরে এক চিন্তা চিন্তা হলেও স্বপ্ন আপনার ভবিষ্যৎ। এইসব স্বপ্নের কোন বাস্তবতা আছে কিনা এ ব্যাপারে ধর্মীয় গবেষক এবং দার্শনিকদের মাঝে কিছু মতপার্থক্য রয়েছে।

স্বপ্নের কথা বলা নিয়ে রাসুল (সা.) যা বলেছেন

 

দার্শনিকদের মতে মানুষের চিন্তা ভাবনার একটি প্রতিচ্ছবি তার ঘুমের মাঝে ফুটে ওঠে। যা শুধু ধারণা ও চিন্তা প্রসূত। বাস্তবতার সাথে এর কোন মিল নেই। তবে ইসলামের জ্ঞান সম্পন্ন আলেমরা এ ব্যাপারে দ্বিমত পোষণ করেছেন। তাদের বক্তব্য হলো স্বপ্নই মানুষের ধারণাপ্রসূত নয় বরং অনেক স্বপ্ন রয়েছে যা অর্থবোধক। হযরত আবু হুরাইরা রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু থেকে বর্ণিত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেন- স্বপ্ন তিন প্রকার

 
  1. রুহিয়া হে সালেহা বা ভাল স্বপ্ন যা মহান আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে কোন সুসংবাদ হিসেবে যা বিবেচ্য।
  2. রুহিয়া হে শায়াতিন যা শয়তান কর্তৃক প্রতারণামূলক স্বপ্ন
  3. রুইয়া হে নাফসানি  তথা মানুষের চিন্তা চেতনার কল্পনা চিত্র



এরপর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন যদি কেউ ভয় বা খারাপ স্বপ্ন দেখে তা হলে সে যেন তাড়াতাড়ি অজু করে নামাজে দাড়িয়ে যায়। নবীজী বলেন স্বপ্ন হচ্ছে আমার নবুয়তের 46 ভাগের এক ভাগ। স্বপ্ন সত্য হতে পারে যদি রাত বারোটার পরে দেখা হয় এবং ফজরের নামাজের আগ পর্যন্ত কেউ পবিত্র অবস্থায় ডান কাঁধে শুয়ে থাকে। তাহলে খুব দ্রুতই সে স্বপ্ন সত্যি হতে পারে। যদি কেউ স্বপ্নে নামাজ পড়তে দেখা তাহলে তার আশা পূরণ হবে। ইনশাআল্লাহ।

স্বপ্নে নামাজ পড়িতে দেখার ব্যাখ্যা 

 

যদি কেউ শুয়ে নামাজ পড়তে দেখে তাহলে তার মনে করতে হবে তার মৃত্যু খুব শীঘ্রই এসে গেছে। এই ক্ষেত্রে মহান আল্লাহ তাআলাই ভালো জানেন। যদি কেউ নামাজ বসে পড়তে দেখে তাহলে সে দ্রুতই রোগাক্রান্ত হবে। যদি পশ্চিম দিকে কেউ নামাজ পড়তে দেখে তাহলে ধর্মের দিক দিয়ে সে উদাসীন হবে। যদি নামাজ কোন বড় জামাতের সাথে পড়তে দেখে তাহলে তার নিকট আল্লাহর রহমত অবারিত পড়তে থাকে। আর যদি নিজেই ইমামতি করতে দেখে তাহলে জাতীয় নেতৃত্ব লাভ করার সম্ভাবনা হয়েছে। ইনশাআল্লাহ।

স্বপ্নে কোন নারীকে দেখলে কী হয়

 

যদি কোন পুরুষ স্বপ্নে কোন নারীকে বিয়ে করতে দেখে তাহলে সে ধন সম্পদের মালিক হতে পারে। সবশেষে বলতে চাই মহান আল্লাহ তায়ালা সঠিক বলতে পারেন। উপরোক্ত স্বপ্নের বাস্তবতা এমনই হবে তা আল্লাহ ছাড়া কেউ বলতে পারে না।

 

ওয়া আলাইকুমুস-সালাম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু।
বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম।
জবাবঃ-
https://www.ifatwa.info/37196 নং ফাতাওয়ায় বলেছি যে,
স্বপ্ন ও তার ব্যাখ্যা বিশেষজ্ঞ ইমাম মুহাম্মাদ ইবনে সীরিন রহ. বলেছেন :
الرؤيا ثلاث : حديث النفس ، وتخويف الشيطان ، وبشرى من الله . (رواه البخاري في التعبير)
স্বপ্ন তিন ধরনের হয়ে থাকে। মনের কল্পনা ও অভিজ্ঞতা। শয়তানের ভয় প্রদর্শন ও কুমন্ত্রণা ও আল্লাহ তাআলার পক্ষ থেকে সুসংবাদ। (বর্ণনায় : বুখারি)

হযরত আবু রাযিন আল-উক্বাইলী রাঃ বলেন নবী কারীম সাঃ বলেছেন
، عَنْ أَبِي رَزِينٍ العُقَيْلِيِّ، قَالَ: قَالَ رَسُولُ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ: «رُؤْيَا المُؤْمِنِ جُزْءٌ مِنْ أَرْبَعِينَ جُزْءًا مِنَ النُّبُوَّةِ، وَهِيَ عَلَى رِجْلِ طَائِرٍ مَا لَمْ يَتَحَدَّثْ بِهَا، فَإِذَا تَحَدَّثَ بِهَا سَقَطَتْ».
মু’মিনের স্বপ্ন হচ্ছে নবুওতের চল্লিশভাগের এক ভাগ(অর্থাৎ তা সত্যরূপ পরিনত হয়ে থাকে),যে স্বপ্ন দেখেছে স্বপ্নটা তার উপর ঘুর্ণায়মান থাকে যতক্ষণ না কারো কাছে ব্যক্ত করে,অতঃপর যখন সে কারো কাছে ব্যক্ত করে (এবংঐ ব্যক্তি এর কোনো ব্যখ্যা প্রদান করে) তখন ঐ ব্যখ্যা অনুযায়ীই স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়।(তিরমিযি হাদীস নং ২২৭৮)

সুপ্রিয় প্রশ্নকারী দ্বীনি ভাই/বোন!
স্বপ্নে নামায পড়ার অর্থ হল, নিজ জীবনে রহমত বরকত চলে আসা।আপনি চেষ্টায় থাকুন।আল্লাহ বারাকাহ দিবেন।


(আল্লাহ-ই ভালো জানেন)
——————————–
মুফতী ইমদাদুল হক
ইফতা বিভাগ
Islamic Online Madrasah(IOM)

Leave a Comment

Share via
Copy link
Powered by Social Snap